আড়াই যুগ পর জানলেন তিনি আসলে ‘পুরুষ’

NewsBarisal.com

প্রকাশ : জুন ২৮, ২০২০, ৮:০৫ অপরাহ্ণ

নিউজ বরিশাল ডেস্ক : শারীরিক গঠন কিংবা আচার ব্যবহার সব দিক থেকেই তিনি একজন নারী। কিন্তু ৩০ বছর পর তিনি জানতে পারেন নারী হিসেবে এতদিন জীবনযাপন করলেও জিনগতভাবে তিনি আসলে একজন পুরুষ।

বিরল এই ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের বীরভূমে। ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভির তথ্য অনুযায়ী, ৯ বছর আগে ওই নারীর বিয়ে হয়। বিয়ের পর ভালোই কাটছিল তাদের দিন।

তবে গত কয়েকবছর ধরে বেশ কয়েকবার গর্ভধারণের চেষ্টা করলেও সফল হচ্ছিলেন না ওই দম্পতি। কারণ জন্মগত ভাবেই ওই নারীর জরায়ু এবং ডিম্বাশয় নেই। কিন্তু সেটা তিনি জানতেন না। সম্প্রতি চিকিৎসা করাতে গিয়ে বিষয়টা তিনি জানতে পারেন।

কিছদিন আগে ওই নারীর প্রচণ্ড পেটে ব্যথা হয়। লকডাউনের মধ্যেই অনেক ঝামেলা সহ্য করে কলকাতার নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসু ক্যান্সার হাসপাতালে ভর্তি হন ওই নারী। সেখানকার চিকিৎসকরা জানান, টেস্টিকুলার ক্যান্সারে ভুগছেন তিনি।

অর্থাৎ তিনি জিনগতভাবে আসলে পুরুষ। কারণ পুরুষদের যৌনাঙ্গের ক্যান্সারেরই একটি প্রকার হল টেস্টিকুলার ক্যান্সার। চিকিৎসকরা আরো জানান, এই ধরণের ক্যান্সার শারীরিক গঠনের কারণেই কোনও নারীর হওয়া সম্ভব নয়।

পরে সেখানকার বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা ওই নারীর শরীরের যাবতীয় পরীক্ষার পর জানতে পারেন, জন্ম থেকেই ওই নারী ‘অ্যান্ড্রোজেন সেনসিটিভিটি সিন্ড্রোম’ নামে একটি বিরল রোগের শিকার। প্রতি ২২ হাজার মানুষের মধ্যে ১ জনের শরীরে এমন রোগ থাকে। এর ফলে একটি শিশু জিনগতভাবে পুরুষ হিসাবেই জন্ম নেয় কিন্তু তার মধ্যে একজন নারীর সব ধরনের শারীরিক বৈশিষ্ট্য থাকে।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, ওই নারীর দুই মাসিরও একই ধরনের রোগ ছিল। সম্ভবত এই রোগটি জিনগতই কারণেই তার হয়েছে।

সর্বশেষ খবর অনুযায়ী, ওই নারীর কেমোথেরাপি চলছে। তার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল।

 



সর্বশেষ সংবাদ