• বরিশাল
  • »
  • বানারীপাড়ায় বিব্রত স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক

বানারীপাড়ায় বিব্রত স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক

NewsBarisal.com

প্রকাশ : নভেম্বর ২৯, ২০২১, ৭:৩০ অপরাহ্ণ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বানারীপাড়া : বরিশালের বানারীপাড়া উপজেলা ৫০ শয্যা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডা. মো. হাফিজুর রহমান শাকিল এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানান, তিনি স্বাস্থ্য সেবা দিতে গিয়ে কর্মক্ষেত্রে বিব্রত অবস্থার সম্মুখিন হচ্ছেন।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করেন, গত ২৬ নভেম্বর বানারীপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সকালের দায়িত্ব পালনকালীন সময় দুপর দেড়টা থেকে ১টা ৪০ মিনিটের দিকে মিসেস মরিয়ম (১৮) নামের একজন প্রসুতি মা ভর্তির ফরম নিয়ে তার কক্ষে আসেন।

তিনি তখন রোগীর কাছে তার পূর্বের পরীক্ষা নিরীক্ষার কাগজপত্র চাইলে তার সাথে থাকা স্বজনরা কেবল বেশ কিছুদিন পূর্বে করানো একটি আলট্রসোনোগ্রামের রিপোর্ট ছাড়া অন্যান্য কোন কাগজপত্র দেখাতে পারেননি।

তখন ডা. শাকিল তাদেরকে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা গুলোর উপদেশ দিয়ে পরবর্তীতে ভর্তি হতে বলেন। উল্লেখ্য, রোগীর তখন সন্তান প্রসবের তেমন কোন উপসর্গ ও চিহ্ন ছিল না। পরবর্তীতে দুপুর আড়াইটার সময় তার দায়িত্বকালীন সময় শেষ হলে পরবর্তী চিকিৎসকের কাছে দায়িত্ব বুঝিয়ে তিনি বাসায় চলে যান। ২৭ নভেম্বর তিনি বহিঃবিভাগে দায়িত্ব পালনে আসলে একজন সিনিয়র স্টাফ নার্স জানান, প্রসূতি মা ওই দিন সকালে সন্তান প্রসব করেছেন এবং ভর্তির ফাইলটি তার কাছে দেয়ার জন্য বলেন। তখন ডা. শাকিল বলেন, ওই রোগীকে তার ডিউটির সময় ভর্তি দেওয়া হয়নি।

তিনি তাৎক্ষনিক বিষয়টি আবাসিক মেডিকেল অফিসার এবং ইউএইচএফপিও এর ওই দিনের চার্জে থাকা ডাঃ গোপাল শীলকে বিষয়টি অবহিত করেন। তিনি সব শুনে পূর্ববর্তী দিনের দায়িত্বকালীন সবাইকে নিয়ে বিষয়টির একটি সমাধানের কথা বলেন। পরে ডা. শাকিল বহিঃবিভাগের দায়িত্ব পালনে গেলে রোগীর সাথের লোকজন বারংবার তার কক্ষে এসে সরকারী নথির ফাইলটি চেয়ে বারবার তার দায়িত্ব পালনে ব্যাঘাত ঘটান। এ সময় তাদেরকে বারবার বুঝানো হয় এটি একটি হাসপাতালের অভ্যন্তরীন বিষয়ের জটিলতা। আপনারা অন্যদের চিকিৎসা সেবায় ব্যঘাত ঘটাতে পারেন না। এর পরেও কোন এক সাংবাদিক ভাইসহ রোগীর লোকজন এসে সরকারী নথি নেয়ার জন্য খুব উচ্চবাচ্চ করেন এবং নানা রকম ভিত্তিহীন কথা বলতে থাকেন। তাদেরকে এক পর্যায় বিরক্ত না করার জন্য অনুরোধ করা হয়।

এরপরেও কথা না শোনায় সরকারী কাজে এবং সেবা প্রদানে বাধা প্রদান করা হচ্ছে বলে পুলিশ ডাকার কথা বলেন ডা. শাকিল। পরে তারা কক্ষ থেকে বিদায় নেন। ওই দিন রাতে অপর একজন সাংবাদিকভাই নিজস্ব ফেইসবুক ওয়ালে তার পরিবারকে জড়িয়ে লেখালেখি করেন বলে তিনি জানতে পারেন। পরবর্তীতে তার নিউজ পোর্টালে ঘটে যাওয়া বিষয়ের ওপরে তথ্য বহুল সংবাদ প্রকাশতো করেননি বরং তার পরিবারকে টেনে অযাচিত সংবাদ করেন বলে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করেন ডা. শাকিল।

(Visited 1 times, 1 visits today)

 



সর্বশেষ সংবাদ