শিক্ষার্থীর জন্য বীমা

NewsBarisal.com

প্রকাশ : অক্টোবর ১৬, ২০২১, ৮:১৬ অপরাহ্ণ

উচ্চশিক্ষার বলয়ে সকল শিক্ষার্থীকে বীমার আওতায় আনার একটি কর্মসূচী চালু হয়েছে। প্রথমে তা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের জন্য অনুমোদন করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের প্রাসঙ্গিক ব্যবস্থাপনায় বছরে মাত্র ২৭০ টাকা প্রিমিয়াম দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা স্বাস্থ্য ও জীবন বীমায় তালিকাভুক্ত হওয়ার সুযোগ পাচ্ছে। বীমাকৃত ছাত্রছাত্রীর বিভিন্ন হাসপাতালে স্বাস্থ্য সুরক্ষায় প্রাসঙ্গিক সেবা পেতে কোন ধরনের সমস্যা হবে না। এটি যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত যা নতুন প্রজন্মের সুরক্ষার বিষয়টিকে তাদের জীবন রক্ষার মাত্রায় নিয়ে গেল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারী এই নতুন স্বাস্থ্য ও জীবন বীমায় তাদের প্রাসঙ্গিক সেবাদান কর্মসূচী পেয়ে যাবেন। প্রতিবছর ভর্তির সময় ২৭০ টাকা জমা দিয়ে শিক্ষার্থীরা এই অভাবনীয় সুযোগ পেয়ে যাওয়ার তথ্য সত্যিই যুগান্তকারী।

করোনার মহাদুর্বিপাকে বাংলাদেশসহ সারা বিশ্ব যে অসহনীয় দুঃসময় পার করেছে। স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়টি সামনে দ্রুত সামনে এসেছে একারণেই। স্বাস্থ্য সচেতনতার নিয়ামক শক্তি নিয়মিত শৃঙ্খলাবোধ, পরিচর্যা ছাড়াও চিকিৎসা সংক্রান্ত বিষয়টি ওতপ্রোতভাবে জড়িত। স্বাস্থ্য পরীক্ষার ব্যাপারটিও যেন শিক্ষা জীবনের অনুষঙ্গ হয়ে যায়, সেটাকে গুরুত্বপূর্ণ বিবেচনায় এনে সরকার নতুন এই কর্মপ্রকল্প গ্রহণ করেছে। চলমান শিক্ষাবর্ষের ভর্তির সময় যারা প্রিমিয়াম জমা দিতে পারেনি তারা সংশ্লিষ্ট কার্যক্রমের ওয়েবসাইটে গিয়ে তা দিতে পারবেন বলে। টাকা জমা দেয়ার পর সংশ্লিষ্টরা একটি রসিদ পেয়ে যাবেন। সেটা যত্নসহকারে সুরক্ষিত রাখাও দায়িত্বের মধ্যেই পড়ে। বীমা সুবিধা যখন চাওয়ার সময় আসবে তখন অন্যান্য প্রয়োজনীয় কাগজের সঙ্গে বীমা সংক্রান্ত এই রসিদও দিতে হবে।

প্রতি শিক্ষার্থী স্বাস্থ্য সেবার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা বীমা সুবিধা পাবেন। হাসপাতালে ভর্তি হলে কেবিন, ওয়ার্ড ভাড়া, অভ্যন্তরীণ সেবাপ্রদান, অস্ত্রোপচার, চিকিৎসকের পরামর্শ ফি, ওষুধ ও পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য প্রতিদিন সর্বোচ্চ ৫ হাজার টাকা চিকিৎসা ব্যয় নির্ধারণ করা হয়েছে। বীমা সংক্রান্ত এমন কর্মবিধির জন্য শিক্ষার্থীদের নিজ নিজ বিভাগ, ইনস্টিটিউটের দাফতরিক অফিসে যোগাযোগ করে তার প্রাপ্য বুঝে নিতে হবে। এছাড়াও বহির্বিভাগে চিকিৎসার জন্য শিক্ষার্থীরা বার্ষিক ১০ হাজার টাকা বরাদ্দ পাবেন। সুযোগ-সুবিধা প্রদানের কিছু নিয়মবিধিও সম্পৃক্ত হয়েছে। সীমারেখা নির্ধারণ করে এই বৃহৎ কর্মসূচীকে কতিপয় শৃঙ্খলার অনুবর্তীও করা হয়েছে। যেমন-২৮ বছর অতিক্রান্ত এবং ছাত্রত্ব হারানো শিক্ষার্থীরা এই কার্যক্রম থেকে কোন সুযোগ-সুবিধা পাবেন না।

সরকারের এই মহৎ কার্যক্রম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য এক অনন্য পদক্ষেপ। তবে তা শুধু একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে সীমাবদ্ধ না রেখে সারা দেশের সরকারী-বেসরকারী সব বিশ্ববিদ্যালয়ে সম্প্রসারিত করা একটি যুক্তিসঙ্গত সময়ের দাবি। আশা করা যায়, সরকার ইতোমধ্যে তা বিবেচনায় এনেছে। সময় ও সুযোগ বুঝে তা ঘোষিত কার্যক্রমে রূপ নেবে, এমন প্রত্যাশা শিক্ষা সংশ্লিষ্টদের। জীবন ও স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়গুলো সর্বজনীনভাবে সকলের মাঝে ছড়িয়ে দিতে না পারলে বীমা কর্মসূচী তার যথার্থতা হারাতে পারে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য গৃহীত নতুন এই প্রকল্প যেন সংশ্লিষ্টরা কোন ঝক্কি ঝামেলা ছাড়াই পেতে পারে, তেমন ব্যবস্থাপনাও অত্যন্ত জরুরী। আবার তা সব বিশ্ববিদ্যালয়ে সম্প্রসারিত করাও পরিস্থিতির অনিবার্য দাবি। দৈনিক জনকণ্ঠ

 



সর্বশেষ সংবাদ