• এক্সক্লুসিভ
  • »
  • বরিশালে লাগামহীন সবজি বাজার, ক্রেতাদের নাভিশ্বাস

বরিশালে লাগামহীন সবজি বাজার, ক্রেতাদের নাভিশ্বাস

NewsBarisal.com

প্রকাশ : নভেম্বর ২, ২০২০, ১০:২৮ অপরাহ্ণ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বরিশাল : বরিশালে আলু পিয়াঁজের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে শাক-সবজির দাম। পাইকারী ও খুচরা বাজারে শীতকালিন সবজির সাথে অন্যান্য সবজি চাহিদা অনুযায়ী আমদানী থাকলেও দাম নাগালের বাইরে। বাজারে আসা শীতকালিন সবজি টমেটো, ফুলকপি ও বাঁধাকপির মান ভাল না হলেও দাম কিন্তু বেশ চড়া।

সাধ ও সাধ্যের বাইরে থাকায় নিন্ম আয়ের মানুষ পড়ছে বেকায়দায়। বিক্রেতারা বলছেন, অতিবৃষ্টি ও বন্যায় সবজির ক্ষেত নষ্ট হওয়ায় সরবরাহ কম তাই পাইকারী বাজারে সবজির দাম বেশি। অপরদিকে পাইকারী ব্যবসায়ীরা দুষছেন খুচরা বিক্রেতাদের। তবে ক্রেতা সাধারণ বাজার মনিটরিং জোড়দার করার দাবী জানিয়েছেন।

রবিবার সরেজমিনে নগরীর কাঁচাবাজারগুলো ঘুরে দেখা গেছে, প্রতি কেজি আলু ৪৫ টাকা ও পিয়াঁজ ৯০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। গত এক সপ্তাহ ধরে বরিশালের বাজারগুলোতে কাঁচামরিচ ১৮০ থেকে ২৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। খুচরা বাজারে ফুলকপি ও বাধাঁ কপি যা এসেছে তার মান ততোটা ভাল না হলেও দাম বেশি। প্রতি কেজি ফুলকপি ৬০-৭০টাকা, বাধাঁকপি ৫০টাকা, টমেটো ১৪০-১৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

এছাড়া মুলা প্রতি কেজি ৪০টাকা, চাল কুমড়া ২৫-৩০টাকা, বরবটি ৭০টাকা, বেগুন ৬৫-৮০টাকা, করল্লা ৭০-৮০টাকা, ঝিঙ্গা ৪০টাকা, শসা ৪০-৫০টাকা, ঢেরস ৫০, গাজর ৮০, কাঁচাকলা (হালি) ৩৫-৪০, ধনে পাতা ২৫০টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া গত তিনদিন ধরে প্রতি কেজি আদা ২০০টাকা দরে বিক্রি হলেও গতকাল রবিবার খুচরা বাজারে তা ১৫০টাকা দরে বিক্রি হয়। মুশুরী ডাল কেজি প্রতি ১০-২০ টাকা বেড়ে ৭৫-৮০টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

সবজির এ চড়া দাম চলছে কয়েক সপ্তাহ ধরে। এছাড়া সরকার আলুর দাম প্রতি কেজি ৩৫টাকা নির্ধারণ করে দিলেও বরিশালের বাজারে প্রতি কেজি আলু ৪৫-৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। ফলে নিম্ন ও মধ্য আয়ের লোকজন হিমশিম খাচ্ছে। এদিকে খুচরা ব্যবসায়ীদের অভিযোগ কোন আড়ৎদার বর্তমানে আলু কিনলেও কোন ক্যাশ ম্যামো দিচ্ছেন না।

এদিকে মুরগী ও গরুর মাংস পূর্বের দামেই বিক্রি হচ্ছে। প্রতি কেজি গরুর মাংস ৬৫০টাকা, লেয়ার মুরগী প্রতি কেজি ২১৫, সোনালী ১৮৫-১৯০টাকা, ব্রয়লার ১১৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। অপরদিকে ইলিশ শূণ্য বাজারে বেড়েছে দেশীয় অন্যান্য মাছের দাম। প্রায় প্রত্যেক ধরণের মাছে কেজি প্রতি দাম বেড়েছে ৩০-৫০ টাকা।

নগরীর নতুন বাজারে আসা ক্রেতা শফিক জানান, সবজির দাম খুব বেশি। এরপরও টাটকা সবজি নেই। ফলে নিম্নমানের সবজিই বেশি দামে কিনতে হচ্ছে। রিক্সা চালক হারুন বলেন, “কাঁচা তরকারির যে দাম, তাতে আমাদের মতো গরীবের পক্ষে সবজি খাওয়া যাবে না”।

নগরীর বড় বাজারের সবজি বিক্রেতা রফিক বলেন, মোকামে সবজির দাম বেশি, তাছাড়া কাঁচামাল আনতে গেলে লেবার, আড়ৎদারী খরচ ছাড়াও পরিবহনের সময় কিছু পণ্য নষ্ট হয়ে যায় তাই খুচরা বাজারে সবজির দাম বেশি।

বরিশাল পাইকারী কাঁচাবাজারের আড়ৎদতার তারিক মোহাম্মদ বলেন, করোনার মধ্যেও সবজির দাম কিছুটা কমেছিল। কিন্তু বৃষ্টি ও বন্যায় উৎপাদন ব্যাহত হওয়ায় এখন বেড়েছে। তবে বাজারে সবজির আমদানী বাড়লে দাম কিছুটা কমতে পারে বলেও জানান তিনি।

এদিকে ক্রেতা সাধারণের দাবী বাজার মনিটরিং কার্যক্রম আরো জোরদার করতে হবে। পাশাপাশি অভিযান অব্যাহত রাখতে হবে। অপরদিকে ভোক্তা অধিকার ও জেলা প্রশাসন সূত্র বলছে, তাদের পক্ষ থেকে নিয়মিত বাজারগুলোতে মনিটরিংসহ ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হচ্ছে।

 



সর্বশেষ সংবাদ
রাজাপুর থানা মুক্ত দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত ইসলামিয়া হাসপাতালের ওয়ার্ড বয় রুম্মানের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ স্মৃতির পাতায় স্বনামধন্য আইনজীবী সাংবাদিক আব্দুল কাইয়ুম হিজলায় কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা বাকেরগঞ্জের মদ বিক্রেতা লুকাস আব্রাহম গোমেজকে ৭ বছরের কারাদন্ড ঝালকাঠির মাদক ব্যবসায়ি জুয়েলকে ১০ বছরের কারাদন্ড বরিশাল প্রেসক্লাব সভাপতিসহ তিন সদস্য’র সুস্থতা কামনা তজুমদ্দিনে ইন্সুরেন্স কর্মকর্তার বিয়ের প্রলোভনে শারীরিক সম্পর্ক, বিয়ে না করলে আত্মহত্যার হুমকি নারী কর্মীর বাবুগঞ্জে আওয়ামীলীগ নেতাদের সুস্থতা কামনায় দোয়া মোনাজাত এমপি শাহে আলমের নেতৃত্বে শিক্ষা বিপ্লবে বানারীপাড়া