• বরিশাল
  • »
  • উজিরপুরে যুবলীগ নেতার ধর্ষণ আতংকে পালিয়ে বেড়াচ্ছে গৃহবধূ

উজিরপুরে যুবলীগ নেতার ধর্ষণ আতংকে পালিয়ে বেড়াচ্ছে গৃহবধূ

NewsBarisal.com

প্রকাশ : নভেম্বর ৮, ২০১৯, ৩:২৪ অপরাহ্ণ

নিউজ বরিশাল : বরিশালের উজিরপুর উপজেলার হারতা ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারন সম্পাদক ও ইউপি সদস্য নিখিল চক্রবর্তীর (৪০) বিরুদ্ধে শিশু সন্তানকে অপহরণ-হত্যার হুমকি দিয়ে এক গৃহবধূকে (২৯) ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযুক্ত নিখিল চক্রবর্তী হারতা ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ড ইউপি সদস্য। তার ভয়ে চার বছরের শিশু সন্তানকে নিয়ে প্রায় তিন মাস আগে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে বরিশাল নগরীতে আশ্রয় নিয়েছেন ওই গৃহবধূ। ঘটনাটি এতো দিন গোপন থাকলেও বুধবার প্রকাশ্যে আসে।

বুধবার (৬ নভেম্বর) বিকেলে ওই গৃহবধূ এই প্রতিবেদকে জানান, গত পাঁচ বছর আগে উপজেলার হারতা ইউনিয়নের কুচিয়ারপাড় গ্রামের এক যুবকের সাথে তার বিয়ে হয়। তার স্বামী ঢাকায় ব্যবসা করেন। সেই সুবাদে হারতা বন্দরে বাসা ভাড়া করে সন্তান নিয়ে ওই গৃহবধূ বসবাস করতেন। সময় সুযোগ হলে স্বামী বাড়িতে আসতেন। চার বছর আগে তার ওপর কু-নজর পড়ে ইউপি সদস্য নিখিল চক্রবর্তীর। তাকে প্রায়ই কু-প্রস্তাব দিতেন নিখিল। এর ফাঁকে একাধিকবার ধর্ষণেরও চেষ্টা চালান। ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে শিশু সন্তানকে অপহরণ ও হত্যার হুমকি দেন নিখিল। এমনকি নিখিলের ছোট ভাই বরুন চক্রবর্তীও ওই গৃহবধূর ভাড়া বাসায় গিয়ে প্রায়ই উত্যক্ত করতো। এমন পরিস্থিতি প্রায় ৩ মাস আগে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে বরিশাল নগরীতে বোনের বাসায় আশ্রয় নেন ওই গৃহবধূ।

এরই ধারাবাহিকতায় গত ৩০ অক্টোবর গৃহবধূর বোনের ছেলে বাপন রায়কে প্রকাশ্যে মারধর করে ১০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেন যুবলীগ নেতা নিখিল। আহত বোনের ছেলে বর্তমানে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ওই গৃহবধূ আরও অভিযোগ করে বলেন, যুবলীগ নেতা নিখিল চক্রবর্তীর অত্যাচারে আমি অতিষ্ঠ। তার হাত থেকে রক্ষা পেতে উপজেলা চেয়ারম্যানের কাছে অভিযোগ দিয়েছি আমি। কিন্তু তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। এখন তার ভয়ে এলাকা ছেড়ে আত্মগোপনে রয়েছি। থানায় এসে অভিযোগ দিতে সাহস পাচ্ছি না। তবে ফোনে থানার ওসিকে বিষয়টি জানিয়েছি আমি।

উজিরপুর মডেল থানা পুলিশের ওসি শিশির কুমার পাল বলেন, এ ঘটনায় মৌখিক অভিযোগ পেয়েছি। গৃহবধূকে লিখিত অভিযোগ দিতে বলেছি। তার নিরাপত্তা নিয়ে ভয় নেই। পুলিশই গৃহবধূর নিরাপত্তা দেবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযুক্ত যুবলীগ নেতা ও ইউপি সদস্য নিখিল চক্রবর্তী বলেন, ‘এসব অভিযোগ সত্য নয়। ওই নারীর অভিযোগ উদ্দেশ্য প্রণোদিত। তাছাড়া গত ৩০ অক্টোবর রাতে ওই গৃহবধূর বোনের ছেলে চিহ্নিত মাদক বিক্রেতা বখাটে বাপন রায় হারতা বাজারে এক মাহিন্দ্রা চালককে মারধর করে। এ ঘটনায় পরের দিন সকালে ওই মাহিন্দ চালক ও স্থানীয়রা বখাটে বাপনকে মারধর দিয়ে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে। ওই গৃহবধূ সেই দায় আমার ওপর উঠিয়ে এমন মিথ্যা অভিযোগ উঠিয়েছে।’

নিখিল আরও বলেন, ‘তাছাড়া শীঘ্রই ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ও যুবলীগের কাউন্সিল তাই একটি পক্ষ ওই নারীকে ব্যবহার করে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। আমাকে হেয় করার জন্য এ ধরনের নাটক সাজানো হয়েছে।’

 



সর্বশেষ সংবাদ
%d bloggers like this: